মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
আতর বিক্রেতার মেয়ের ঘটনা……… একজন মাতাল ব্যক্তির বেহেশতে যাওয়ার গল্প……. ভুল নম্বরে টাকা চলে গেলে ফেরত পাবেন যেভাবে…. ঈদের দিনের পরিস্থিতি নিয়ে যা বললেন আবহাওয়া অধিদপ্তর এবার কানাডা ক্ষেপেছে মুসলিম বিদ্বেষী ভারতীয়দের উপর স্মার্টফোনে যুক্ত হচ্ছে ই-সিম প্রযুক্তির বিপ্লব চলছে বিশ্বজুড়ে। কে কত দ্রুত এগিয়ে যেতে পারে,‌ লড়াই তা নিয়েই। তাইতো ফাইভ-জি’র পর পরবর্তী প্রজন্মের জন্য সিক্স-জি নেটওয়ার্কিং পরিষেবা উৎপাদন করতে কাজ করছেন গবেষকরা। ফাইভ-জি কেমন হবে তা অনেকেরই জানা। এবার প্রশ্ন আসতেই পারে, সিক্স-জি কী এবং কেমন হবে? বাড়ি তলায় ১২০ বছরের গোপন সুড়ঙ্গের সন্ধান একজনের খাবার আশিজন খেল…… মাহে রমজানের ৩০ দিনের ৩০টি ফজিলত কি কি জেনে নিন

শেখ হাসিনার ‘কঠিন’ পাঁচ সিদ্ধান্ত

Monoj Mondol
  • আপডেট টাইম : ১৯ মার্চ, ২০২০
  • ১৪০ Time View
করোনা ভাইরাস

মুজিববর্ষ উদযাপন ঘটা করে করাটা ছিল আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন। এই স্বপ্ন পূরণের জন্য সব আয়োজনই সম্পূর্ণ হয়েছিল। টানা তৃতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়ার পর মুজিববর্ষ উদযাপনের ক্ষেত্রে পুরো জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল। কে জানতো, এই সময়ে করোনার আঘাত আসবে? শেখ হাসিনা এই করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে মুজিববর্ষের কর্মসূচী কাটছাঁট করেছেন, বিদেশি অতিথিরা বাংলাদেশে আসছেন না।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, যখন করোনা সংক্রমণের খবরটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানে তখন তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের সময় চান এবং সাক্ষাতে তারা প্রধানমন্ত্রীকে বলেন যে, ইতালি থেকে আসা দুইজনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে, তাদের পরিবারের একজনও করোনায় আক্রান্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন বলেন যে, ‘জনস্বাস্থ্য সবার আগে, মুজিববর্ষ পরেও করা যাবে’।
আমরা জানি যে, কথাটা বলা যতটা সহজ, বাস্তবে ততটা সহজ ছিল না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য। যিনি ৭৫ এর ১৫ আগস্ট তার প্রিয় পিতার নির্মম হত্যাকাণ্ডের সময় বিদেশে অবস্থান করছিলেন। তারপর এক কঠিন প্রতিকূলতাকে জয় করে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছেন। জনগণকে জাগিয়েছেন এবং দেশকে ক্ষুধা এবং দারিদ্র মুক্ত করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের পথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। এরকম একটা সিদ্ধান্ত শেখ হাসিনার জন্য পাহাড় টপকানোর মতো একটি বিষয় বলেই মনে করেন অনেকে। তবে এই সিদ্ধান্ত তাকে নিতে হয়েছে দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে। এটাই কি শেখ হাসিনার জীবনের কঠিনতম সিদ্ধান্ত? নাকি অন্যকিছু? আসুন দেখে নেয়া যাক শেখ হাসিনার জীবনের কঠিনতম সিদ্ধান্তগুলো কী কী-
১. বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার প্রচলিত আইনে করা
১৯৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পান এবং দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়ে তিনি ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত হত্যাকারীদের আইনের আওতায় আনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন তিনি। এইসময়ে তাকে অনেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের হত্যার বিচার বিশেষ ট্রাইব্যুনালে সংক্ষিপ্ত আদালতে করার জন্য পরামর্শ দিয়েছিল। কারণ যারা হত্যাকারী, তারা ইতিমধ্যে আত্মস্বীকৃত খুনী হিসেবে জাতির কাছে প্রতিষ্ঠিত। কিন্তু আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষ ট্রাইব্যুনালের সংক্ষিপ্ত বিচারের পথে পা বাড়ালেন না। বরং তিনি বললেন, ‘না, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হবে প্রচলিত আইনে এবং প্রচলিত বিচার পদ্ধতিতে’। এটা একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়ার ব্যাপার। শেখ হাসিনা জানতেন এই হত্যাকাণ্ডের বিচার নিয়ে নানারকম ষড়যন্ত্র হবে, নানারকম চক্রান্ত হবে। কিন্তু সবকিছু উপেক্ষা করে তিনি প্রচলিত আইনের পথেই এই বিচার প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করার পথ বেছে নেন। যা শেখ হাসিনাকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে।ঁ

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এ জাতীয় আরো খবর..